Author Topic: বিশ্বব্যাপী ইসলামের অধঃপতনের দায়  (Read 1310 times)

0 Members and 1 Guest are viewing this topic.

Jupiter Joyprakash

  • Administrator
  • Full Member
  • *****
  • Posts: 175
  • Karma: +0/-0
    • View Profile
বিশ্বব্যাপী ইসলামের অধঃপতনের দায় ইহুদি বিজ্ঞানীর আবিষ্কৃত মধ্যাকর্ষনের - আল্লামা হৈরান (সাঃ = সামুপুরী)


এক ইসলামী প্রেসকনফারেন্সে হুজুরে পাক খলিফায়ে ইলম আল্লামা হৈরান (সাঃ = সামুপুরী) বলেন, "বিশ্বব্যাপী ইসলামের এই অধপতন আসলে ইহুদীদের ষড়যন্ত্র এবং এর জন্য মূল দায়ী কাফির ইহুদী বিজ্ঞানী গালাগালিওর আবিষ্কৃত মধ্যাকর্ষন তত্ব। আপনারা জানেন এই তত্বের মানে হলো ভুমি হতে যতই উপরে কিছু রাখা হোক না কেন সেটাকে ভুমি প্রচন্ড ভাবে নীচের দিকে টানতে থাকবে। সেইরকমই ইসলামের আকাশছোঁয়া সমুন্নত গৌরবনামাকেও এই ইহুদী বিজ্ঞানী গালাগালিও এবং তার অনুচরেরা মধ্যাকর্ষনের চিপায় ফেলে মাটিতে নামিয়ে ক্রমশঃ ধুলিষ্যাৎ করে ফেলছে। এই জন্যই আল্লাপাক মহান কুরানের ছত্রেছত্রে আরবী প্যাঁচিলা হরফে বারবার ইহুদীদের থেকে সাবধান হতে বলেছেন। শুধু তাই নয়, এই বিজ্ঞানী গালাগালিওর নামেই গালাগালি আছে, তাই ব্লগের নাস্তিকেরা খালি গালাগালি করে এবং এটা প্রমান করে যে নাস্তিকেরা সব ইহুদীর বাচ্চা।"

উপস্থিত এক সাংবাদিক বলেন যে মধ্যাকর্ষন তত্ব বিজ্ঞানী নিউটনের আবিষ্কার, আর শব্দটা গাললাগালিও নয় গ্যালিলিও হবে, আর দুজন বিজ্ঞানীই খ্রীষ্টান ছিলেন ইহুদী নয়। এর জবাবে গম্ভীর কন্ঠে হুজুরে পাক খলিফায়ে ইলম আল্লামা হৈরান (সাঃ = সামুপুরী) বলেন, "আমি একজন বুয়েট পাশ আধুনিক মাওলানা, বিএসটিআই ছাপযুক্ত পণ্যের খাঁটিত্ব নিয়ে যেমন প্রশ্ন তোলা অবান্তর তেমনই বুয়েটের সার্টিফিকেটের কারনে তার প্রতিটি কথাই যুক্তিমূলক এবং আধুনিক বৈজ্ঞানিক মতবাদের এই মর্মে কোন সন্দেহ পোষন করা কাফিরের লক্ষন হিসাবে বিবেচিত হবে।"

আল্লামা হৈরান (সাঃ = সামুপুরী) আরো জানিয়েছেন যে দারুইন নামে যে বিটকেল লোকটি নিজেকে বিজ্ঞানী দাবী করে এবং মানবজাতিকে বান্দরের বাচ্চা বলে সে আসলে কি তা তার নামের অর্থ থেকেই পরিষ্কার। যে লোক দারু ইন করে তার কথাকে মূল্যবান বলে একমাত্র মাল-খাওয়া পাব্লিকেই দাবী করতে পারে। তিনি জোর গলায় বলেন যে বান্দর কখনো মানুষ হয় না বরং মানুষ থেকে বান্দরের সৃষ্টি হয় সেটা নাস্তিকদের দেখলেই প্রমাণিত হয়ে যায়। মহান আল্লাপাক যে অবিশ্বাসী মানুষদের মানবেতর জীবে পরিণত করে দেন এটা ধর্মীয় সত্য, কাজেই মানুষ থেকেই বান্দর এসেছে।
এইবারে আর কেউ দারু-ইন আর ডারউইন এর তফাত বোঝানোর চেষ্টা না করায় তালগাছ এর মালিকানা নিয়ে কোনো সমস্যা হয় নাই।

জানা গেছে তার এই থ্রী-ইন-ওয়ান আবিষ্কারের কারনে আগামী ইসলামিক নোবেল "দ্যা ক্যামেল বলস" এওয়ার্ডে তিনি বিনাপ্রতিদ্বন্দীতায় বিজয়ী হবেন বলে "দ্যা ক্যামেল বলস" অথরিটি এক প্রেস নোটিশে জানিয়েছেন।