Logical Forum

Bengali => BanglaLogic => Topic started by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 09:57:12 AM

Title: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 09:57:12 AM
আসুন নাস্তিকদের কটূক্তির বিরুদ্ধে দাঁত ভাঙা জবাব দেই...

কটূক্তি ১- মুহাম্মদ কাবায় স্থাপিত পৌত্তলিকদের মূর্তি ভেঙেছে, পালক সন্তানের বিধান বাতিল করে পালক পুত্রের স্ত্রীকে বিবাহ করেছে, নারীদের উপর পর্দা চাপিয়ে দিয়েছে...

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন কোন প্রথা বা আচার সমাজে প্রচলিত হলেই তা কল্যাণকর হয় না। আমাদের মনে রাখতে হবে মুহাম্মদ (সঃ) ছিলেন সর্বকালের শ্রেষ্ঠ সমাজ সংস্কারক। তিনি অনেক প্রথা বাতিল করে নতুন বিধান দিয়েছিলেন সমাজ পরিবর্তনের স্বার্থে। তার প্রতিটি পদক্ষেপের পিছনেই সুদূরপ্রসারী কল্যান নিহিত...

কটূক্তি ২- মুহাম্মদ যুদ্ধবন্দীনিদের ধর্ষণ করেছিল; একাধিক পত্নী, উপপত্নী, দাসী রেখেছিল; নাবালিকা বিয়ে করেছিল; অমুসলিমদের হত্যা অথবা নির্বাসিত করেছিল...

দাঁত ভাঙা জবাবঃ নাস্তিকরা আসলেই বেকুব। আরে এসব প্রথা তো তৎকালীন আরবেই প্রচলিত ছিল। সময়ের প্রয়োজনে প্রচলিত কোন প্রথা অনুসরণ করলে তাঁর দোষ কোথায়? আসলে ইসলাম বিদ্বেষী হলেও নাস্তিকগুলা ইসলাম সম্পর্কে কিছুই জানেনা...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:02:35 AM
কটুক্তি ৩- ইসলামে যুদ্ধবন্দিনী ও দাসী ধর্ষণ বৈধ।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন অতীতের প্রক্ষাপটে কে কি করেছে এ প্রসঙ্গ তোলা এখন অবান্তর। বর্তমানে মুসলমানরা তো আর দাসী ধর্ষণ করছে না।

কটুক্তি ৪-এখনো বিশ্বের অনেক জায়গায় মুসলিমরা হিল্লা বিয়ে ,মেয়েদের খৎনা এসব বর্বর প্রথার চর্চা করছে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ বর্তমানের মুসলিমরা কোন অপকর্ম করলেই তার জন্য ইসলাম দায়ী হবে কেন? এরা সহী মুসলিম নয়। আমাদের দেখতে হবে নবী ও তার সাহাবীরা কিভাবে ইসলাম পালন করতেন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:03:55 AM
কটূক্তি ৫- ইসলামে যাচাই-বাছাই করার সুযোগ নেই। জন্মসূত্রে প্রাপ্ত ধর্মকে আঁকড়ে ধরে রাখতে হবে। ধর্ম ত্যাগ করলেই কতল...

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ধর্মত্যাগী হওয়া মানে নিজ পরিবার, গোত্রের সাথে বেঈমানি করা। আপনি কি জন্মভূমি যাচাই বাছাই করেন নাকি জন্মসূত্রে পান? কিছু কিছু বিষয় আছে যাবতীয় প্রশ্নের ঊর্ধ্বে। ধর্মও তাই।

কটূক্তি ৬- ইসলামে অন্য ধর্মানুসারীদের জাহান্নামি বলা হয়েছে। কিন্তু জন্মসূত্রে প্রাপ্ত ধর্মের জন্য তো কেউ দায়ী নয়। তাহলে কেন ভাল কাজ করেও বিধর্মী মাত্রই জাহান্নামি হবে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ জন্মসূত্রে প্রাপ্ত ধর্মই কেন কেউ আঁকড়ে ধরে থাকবে? তার কি বিচার বিবেচনা নেই? সে কি ভাল মন্দের পার্থক্য বোঝে না?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:04:47 AM
কটূক্তি ৭- হাদীসে নারীদের নিয়ে অনেক আপত্তিকর বক্তব্য আছে। নারীকে ঘোড়া, কুকুরের সাথে তুলনা করা হয়েছে; পুরুষের জন্য অশুভ বলা হয়েছে; স্ত্রীকে প্রহারের অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কোন পয়গম্বর কি এরকম জঘন্য কথা বলতে পারেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন আল্লাহ নিজে কোরানকে সংরক্ষিত করলেও হাদিসকে করেননি। হাদীসগুলোতে মানুষের হস্তক্ষেপ হয়েছে তাই এগুলোতে ভুল ভ্রান্তি থাকা স্বাভাবিক। তাছাড়া ইহুদি-নাসারারা ষড়যন্ত্র করে অনেক ভুল তথ্য ঢুকিয়ে দিয়েছে। তাই হাদীস বাদ দিয়ে কোরানেই মনোযোগি হতে হবে। কোরানই ইসলামের আসল উৎস...

কটূক্তি ৮- কোরানে নারীকে শস্যক্ষেত্রের সাথে তুলনা করা হয়েছে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ বিচ্ছিন্ন ভাবে একটা আয়াত তুলে দিয়ে কোরানের ভুল ধরলেই তো হবেনা। কোন প্রেক্ষিতে এই আয়াত নাজিল হয়েছে তা জানতে হবে। এর জন্য হাদীস পড়তে হবে...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:05:29 AM
কটূক্তি ৯- মুসলমানরা ভিন্ন দেশের মুসলিমদের উপর নির্যাতনের জন্য প্রচুর সমালোচনা করে অথচ নিজ দেশে অমুসলিমদের উপর নির্যাতনের বিষয়ে উচ্চবাচ্য করেনা।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন আল্লাহ কোরানে মুসলিমদের ভাই হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। ভাইদের প্রতি বেশি টান থাকাই তো স্বাভাবিক তাই না?

কটূক্তি ১০- মুসলিমরা একে অপরের ভাই হলে নিজেদের মধ্যে এত বিভক্তি কেন? কেন এত হানাহানি, রক্তারক্তি?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন নবীজি নিজেই বলেছেন, মুসলিমরা ৭৩ ভাগে বিভক্ত হবে। তাই মুসলিমদের মধ্যে বিরোধ নবীর বক্তব্যের সত্যতা প্রমান করে...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:06:10 AM
কটূক্তি ১১- ইসলামে ব্যাভিচারের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। দুজন ব্যাক্তি পরস্পরের ইচ্ছায় মিলিত হলে তাদের কেন মৃত্যুদণ্ড দিতে হবে? এটা কি অমানবিক নয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন যৌন স্বাধীনতা কখনোই গ্রহনযোগ্য হতে পারে না। এর ফলে পরকীয়া বৃদ্ধি পায়। তাছাড়া এর কারনে নারীরা মূলত স্বাধীনতার নামে পন্যে পরিণত হয়।

কটূক্তি ১২- ধর্ষণের মত জঘন্য যৌন অপরাধ কিভাবে গ্রহনযোগ্য হতে পারে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন যুদ্ধবন্দিনীরা মুসলিমদের বিরত্বে মুগ্ধ হয়ে নিজেরাই মিলিত হত। এতে তারাও আনন্দ পেত সেটা কি আপনাদের চোখে পড়েনা? আর দাসীদেরকে তো ভরণপোষণ দিতে হত। এর ফলে তারা নিরাপত্তা পেত। সম্মানের সাথে বসবাস করতে পারত...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:07:06 AM
কটূক্তি ১৩- মুসলমানরা চোদ্দশ বছর পূর্বের জীবনবিধানে ফিরে যাওয়ার কথা বলে। যা আজকের যুগে অচল।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যাবস্থা। এখানে সব সমস্যার সমাধান দেওয়া আছে।

কটূক্তি ১৪- কিন্তু মুসলমানরা ঠিকই বিধর্মীদের প্রবর্তিত আধুনিক জীবনযাপনের সুফল ভোগ করে...

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম নমনীয় ধর্ম। এখানে পরিবর্তনের সুযোগ আছে...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:07:47 AM
কটূক্তি ১৫- ইসলাম বা নবীকে নিয়ে কটাক্ষ করলে মুসলিমরা তার প্রতিবাদে রক্তপাত করে। এটা কি গ্রহণযোগ্য?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইসলাম বা নবীকে কটাক্ষ করা মানে ১৫০ কোটি মুসলিমের অনুভূতিকে আহত করা। এ অপরাধ ক্ষমার অযোগ্য...

কটূক্তি ১৬- মুসলিমরাও তো অন্যান্য ধর্মকে ঠিকই কটাক্ষ করে। এতে অসংখ্য বিধর্মীদের অনুভূতি আহত হয় না?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন কেউ ভ্রান্ত ধর্মে বিশ্বাস করলেই কি সেটাকে সম্মান জানাতে হবে? কারো বিশ্বাস যদি হাস্যকর হয় তাহলে সেটা নিয়ে হাসাহাসি করা যাবে না কেন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:10:13 AM
কটূক্তি ১৭- ইসলাম জ্ঞান চর্চায় উৎসাহিত করেনা। শুধু কোরআন, হাদীস বা ধর্মীয় জ্ঞান অর্জনের কথা বলে...

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম বিষয়ে জানায় আপনার ব্যাপক ঘাটতি আছে। কোরআন হচ্ছে সর্ব জ্ঞানের আধার। আর আমাদের নবী বলেছেন, 'জ্ঞান অর্জনের জন্য সুদূর চীন পর্যন্ত যাও।' মূলত ইসলাম হচ্ছে পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা এখানে সব বিষয়ে জ্ঞান অর্জনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। আপনি নিশ্চয় ইবনে সীনা, আল রাজী'দের কথা জানেন... 

কটূক্তি ১৮- তাহলে মুসলিমরা কেন আরুজ আলী মাতব্বুর, হুমায়ুন আজাদকে ঘৃণা করে, কেন বিবর্তন বাদ পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করতে দেয় না?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন এরা নাফরমানি কথাবার্তা বলে মানুষকে বিভ্রান্ত করে। আর এসব দুনিয়াবি জ্ঞান নিয়ে কি হবে? দুনিয়া দুইদিনের আখিরাতই আসল। এত জ্ঞান অর্জন করতে গিয়ে পরে নাস্তিক হবে নাকি?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:11:09 AM
কটূক্তি ১৯- কোরানের ২১:৩২ আয়াতে বলা হয়েছে, 'আমি আকাশ মন্ডলীকে সুরক্ষিত ছাদ করেছি, অথচ তারা আমার আকাশস্থ নির্দেশাবলী থেকে মুখ ফিরিয়ে রাখে।' অথচ আকাশ বলতে কিছুর অস্তিত্ব বিজ্ঞান স্বীকার করেনা। তাহলে কোরআন কিভাবে বিজ্ঞানময় কিতাব হয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন এখানে আকাশ বলতে প্রতীকী ভাবে ওজোনস্তরের কথা বলা হয়েছে। আপনার জানেন ওজোন স্তরের মাধ্যমে আমরা সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে বাঁচতে পারি। আধুনিক বিজ্ঞান এই বিষয়ে সম্প্রতি জানতে পারলেও কোরানে আল্লাহ ১৪০০ বছর আগেই এই কথা বলে দিয়েছেন।

কটূক্তি ২০- কিন্তু কোরানের ৬৭:৫ আয়াতে বলা আছে ,'আমি সর্বনিম্ন আকাশকে প্রদীপমালা (তারকামন্ডলী) দ্বারা সাজিয়েছি;' আকাশ বলতে যদি ওজোন স্তর বোঝায় তাহলে কি বলতে হবে ওজোন স্তরের ভিতরেই তারা অবস্থিত... :O

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন বিজ্ঞান আকাশের অস্তিত্ব স্বীকার না করলেই যে আকাশ নেই তা কিন্তু নয়। বিজ্ঞানীরা তো মহাবিশ্বের শেষ প্রান্ত পর্যন্ত যায় নি। মানুষের জানার বাইরে মহাবিশ্বের বিশাল অংশ আছে। তাই বলা যায় আকাশও আছে। আর প্রথম আকাশের অভ্যন্তরেই নক্ষত্রমন্ডলী সহ আমাদের মহাবিশ্ব, পৃথিবী অবস্থিত...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:24:52 AM
কটূক্তি ২১ - ইসলামকে সর্ব কালের শ্রেষ্ঠ ও পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যাবস্থা বলা হয়। তারমানে দাস প্রথা চিরকালের জন্য প্রযোজ্য?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম একটা মানবিক ধর্ম। দাস প্রথা নিষিদ্ধ করা হয়নি তৎকালীন সময়ের প্রেক্ষাপটে। কিন্তু ইসলামে ইজমা-কিয়াসের বিধান রাখা হয়েছে অর্থাৎ যে কোন প্রথা রহিত করা সম্ভব...

কটূক্তি ২২- তাহলে ইজমা কিয়াসের মাধ্যমে উত্তরাধিকার সম্পত্তিতে কন্যা শিশুদের সমান অধিকার প্রশ্নে মুসলিমরা সম্মত হচ্ছে না কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম একটি নিখুঁত ও পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যাবস্থা। মানব জাতির সার্বিক কল্যানে এর জীবন বিধান তৈরি করা হয়েছে। মূলত ইসলাম নারীদের দিয়েছে সর্বোচ্চ সম্মান। কিন্তু আপনারা ক্ষুদ্র জাগতিক স্বার্থে আল্লাহর আইন ভঙ্গ করতে চান এটা কখনোই গ্রহনযোগ্য নয়...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:26:08 AM
কটূক্তি ২৩ - মুহাম্মদ তাকে নিয়ে ব্যাঙ্গ করার কারনে আসমা বিনতে মারোয়ান'কে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন, বর্তমানে মুসলিমরাও মুহাম্মদকে ব্যাঙ্গের জবাবে ফাঁসির দাবী করে। যত বড় মহামানবই হোক না কেন কার সম্মানের মূল্য কি মানুষের জীবনের চেয়ে বেশি হতে পারে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন, মুহাম্মদ  শুধুই একজন মহামানব ছিলেন না। তিনি ছিলেন রাহমাতুল্লিল আলামিন; যাকে সৃষ্টি না করলে আসমান-জমিন, গ্রহ-নক্ষত্র, চন্দ্র-সূর্য, প্রাণীজগৎ কিছুই সৃষ্টি হত না। বলা যায় মুহাম্মদের জন্যই মানুষ। তাই তাকে ব্যাঙ্গ করা কোনভাবেই ক্ষমার যোগ্য নয়...

কটূক্তি ২৪- তারমানে সব মানুষের আগমন হয়েছিল মুহাম্মদের কারনে। তাহলে মুহাম্মদের আগমন হয়েছিল কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন মুহাম্মদ আসার আগে সমগ্র মানব জাতি জাহেলিয়াতের আঁধারে ডুবে ছিল। তিনি না আসলে মানব জাতি আজো বর্বর রয়ে যেত। মানুষকে রক্ষা করতেই মুহাম্মদের  আগমন। তাই বলা যায় মানুষের জন্যই মুহাম্মদ ...

 
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:27:09 AM
কটূক্তি ২৫ - মুমিনরা সবসময়ই দাবী করে নাস্তিকরা ইসলাম সম্পর্কে কিছু না জেনেই সমালোচনা করে। অথচ অধিকাংশ মুসলিম থেকেই নাস্তিকরা ইসলাম সম্পর্কে বেশি জান।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন অধিকাংশ মুসলিমরাই জাগতিক ভোগে মত্ত হয়ে ইসলামী জ্ঞান থেকে দুরে সরে গেছে। তাই তাদের জানার সাথে তুলনা সঠিক নয়। আপনাদের হক্কানি আলেমদের কাছ থেকে ইসলাম সম্পর্কে জানতে হবে। তাহলেই প্রকৃত ইসলাম সম্পর্কে প্রকৃত ধারনা অর্জন করতে পারবেন। জাগতিক যে কোন বিষয়েই যেমন সংশ্লিষ্ট বিষয়ের শিক্ষক প্রয়োজন তেমনি ইসলাম সম্পর্কে জানতেও আলেম ওলামাদের সাহচর্য প্রয়োজন।

কটূক্তি ২৬ - কিন্তু আলেম-ওলামাদের বক্তব্য, ওয়াজ-মাহফিল শুনলে এবং তাদের কর্মকাণ্ড দেখলে তো বোঝা যায় নাস্তিকরা ইসলাম সম্পর্কে যে অভিযোগ করে সেগুলোই সত্যি।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন বর্তমান যুগে সহি আলেম-ওলামা বলতে কেউ নেই। জাগতিক ভোগে মত্ত হয়ে এরা সবাই ধর্ম ব্যাবসায়ী হয়ে গেছে এবং ধর্মকে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করছে। কিন্তু এসব গুটিকয়েক মোল্লার দায় কেন ইসলামের ঘাড়ে চাপাবেন? নিজের বিবেক অনুযায়ী কোরআন-হাদীস পড়ুন। তাহলেই প্রকৃত ইসলাম সম্পর্কে জানতে পারবেন।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:27:41 AM
কটূক্তি ২৭ - কোরআন যে আল্লাহর বানী কোরআন ব্যাতিত আর কোন প্রমান আছে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ মুহাম্মদ নিজ মুখে বলেছেন কোরআন আল্লাহর বানী। যেহেতু মুহাম্মদ আল্লাহর রাসূল তাই তার কথা সত্য।

কটূক্তি ২৮ - মুহাম্মদ যে আল্লাহর রসূল তার প্রমান কি?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ কেন কোরআন? কোরানেই লেখা আছে মুহাম্মদ আল্লাহর রসূল। আর যেহেতু কোরআন আল্লাহর বানী তাই কোরআনের বক্তব্য সত্য।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:29:43 AM
কটূক্তি ২৯ - মুসলিমদের দাবী ইসলাম নাকি মানবিক ধর্ম। অথচ কোরআন-হাদীস পড়লে অনেক অমানবিক, বর্বর বিধান দেখা যায়। তাহলে কিভাবে ইসলাম মানবতার ধর্ম হয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম শতভাগ বিজ্ঞানসম্মত ধর্ম। একমাত্র আল্লাহ ছাড়া কারো পক্ষেই শতভাগ নির্ভুল বিজ্ঞান সম্মত ধর্ম প্রবর্তন করা সম্ভব নয়। আর আল্লাহ প্রদত্ত ধর্মে কোন বর্বরতা থাকতেই পারে না। মূলত বর্বর প্রথাগুলো অন্তর্ভুক্ত হয়েছে মানুষের দ্বারা। তাই ইসলামের মধ্যে যেসমস্ত বিধান বর্বর সেগুলো মানুষের বিকৃতি ধরে বাতিল করে দিতে হবে। সুতরাং ইসলাম অবশ্যই মানবতার ধর্ম।

কটূক্তি ৩০ - শতভাগ বিজ্ঞানসম্মত দাবী করলেও কোরানের অনেক আয়াত এবং অনেক হাদীস আছে যেগুলো বিজ্ঞান বিরোধী। তাহলে কিভাবে ইসলাম শতভাগ বিজ্ঞান সম্মত ধর্ম হয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইসলাম হচ্ছে শতভাগ মানবিক ধর্ম। আর এত পূর্ণাঙ্গ মানবিক ধর্ম আল্লাহ ছাড়া কারো পক্ষে প্রবর্তন করা সম্ভব নয়। আর আল্লাহ প্রদত্ত ধর্মে কোন অবৈজ্ঞানিক তথ্য থাকতেই পারে না। মূলত অবৈজ্ঞানিক হাদীসগুলো মানুষ কর্তৃক সংযোজিত ধরে বাতিলযোগ্য। আর কোরানে কোন অবৈজ্ঞানিক আয়াত নেই। তবে অর্থ পরিবর্তনের কারনে অনেক আয়াত অবৈজ্ঞানিক মনে হতে পারে। সেগুলোকে যথার্থ অর্থ দ্বারা প্রতিস্থাপন করলেই ইসলাম শতভাগ বিজ্ঞানসম্মত ধর্ম বলে প্রমানিত হবে।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:30:55 AM
কটূক্তি ৩১ - ইসলামের সমালোচনা করলে মুসলিমরা সমালোচনাকারীকে ছদ্মবেশী হিন্দু বলে দাবী করে। এই ছাড়াও অভিযোগ করে এসব সমালোচনা খ্রিষ্টান মিশনারীদের তৈরি। কিন্তু সমালোচক হিন্দু, খ্রীস্টান বা অমুসলিম হলেই বা সমস্যা কোথায়? তারাও তো মানুষ।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন মুসলিমরাই ইসলামের অনুসারী। অমুসলিমদের ইসলামের সমালোচনা করার কোন এখতিয়ার নেই। তারা যে ধর্ম পালন করছে সেই ধর্মের সমালোচনা করে না কেন? নিজ ধর্ম বাদ দিয়ে অন্য ধর্মের সমালোচনা করাটা অনধিকার চর্চা এবং অগ্রহনযোগ্য।

কটূক্তি ৩২ - অমুসলিম মনিষীগণ ইসলাম বা মুহাম্মদের কোন প্রশংসা করলে মুসলিমরা এত উৎফুল্ল হয় কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইসলাম শুধুই মুসলমানদের জন্য আসেনি। বৃহত্তর মানব কল্যান সাধনের জন্যই আল্লাহ নবীকে দিয়ে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত করেছেন। অমুসলিমরাও যখন ইসলামের সত্যতা উপলব্ধি করে তখনই তারা প্রশংসা করে। এটা মুসলিমদের জন্য একটা বিজয়।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 01, 2013, 10:32:03 AM
কটূক্তি ৩৩ - মুমিনরা সবসময়ই ধর্ষণের পেছনে বেপর্দা, নারী স্বাধীনতা ইত্যাদি কারন খুঁজে বেড়ায়। এতে কি প্রকারান্তরে ধর্ষককে উৎসাহিত করা হচ্ছে না? ধর্ষক এগুলো ঢাল হিসেবে ব্যবহার করার সুযোগ পাচ্ছে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন কেউ ইচ্ছে করে ধর্ষক হয় না। ধর্ষণের পেছনে দায়ী তথাকথিত নারী স্বাধীনতার নামে অশ্লীলতা, বেহায়াপনা, নারী পুরুষ অবাধ বিচরন। মূলত মানুষ যতই ইসলাম থেকে দুরে সরে যাচ্ছে ততই ধর্ষণ বাড়ছে। এক্ষেত্রে মূল কারনগুলো না বের করে শুধু ধর্ষকের সমালোচনা করে ধর্ষণ বন্ধ করা সম্ভব নয়।

কটূক্তি ৩৪ - ধর্মের নামে অনেক বিধর্মী নারীদেরকে ধর্ষণ করা হয় গণিমতের মাল আখ্যায়িত করে। এছাড়াও মোল্লারা প্রায়ই শিশু ধর্ষণ করে। এক্ষেত্রে কেন ধর্মের সমালোচনা করা হয় না?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন একটা ধর্ষণের জন্য ধর্ষকই মূলত অপরাধী। এক্ষেত্রে কেউ কেউ ধর্মকে ঢাল হিসেবে ব্যাবহার করতে চাইলে সেটা ধর্মের দোষ হবে কেন?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 28, 2013, 06:33:52 AM
কটূক্তি ৩৫ - মানুষ সহ এই পৃথিবী বা পুরো মহাবিশ্ব যে আল্লাহ সৃষ্টি করেছে তার প্রমান কি?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ কোন কিছুই আপনা আপনি সৃষ্টি হতে পারেনা। সবকিছুরই স্রষ্টা আছে। এই যে আপনি সুন্দর জামা-কাপড় পড়েছেন তা কি আপনা আপনি তৈরি হয়েছে না কেউ তৈরি করেছে? সামান্য জামা-কাপড়েরও যেখানে প্রস্তুতকর্তা আছে সেখানে তার চেয়ে অনেক গুন জটিল এবং বৃহৎ এই মহাবিশ্বেরও অবশ্যই একজন স্রষ্টা আছেন। আর তিনিই আল্লাহ।

কটূক্তি ৩৬ - সব কিছুর যদি একজন স্রষ্টা থাকতে হয় তাহলে আল্লাহ্‌র স্রষ্টা কে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ সব কিছুরই যে স্রষ্টা থাকতে হবে এটা ভুল ধারনা। কোথাও থেকে তো শুরু ধরতে হবে। সেই শুরুটা আল্লাহ। আল্লাহ স্বয়ম্ভু। তাই তাঁর কোন স্রষ্টা নেই।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 04, 2014, 06:06:20 AM
কটূক্তি ৩৭ – আল্লাহ ভবিষ্যৎদ্রষ্টা তারমানে কোন মানুষ অপরাধ করবে তা আল্লাহ আগে থেকেই জানেন। যেহেতু মানুষের আল্লাহর জানার বাইরে যাবার ক্ষমতা নেই তাহলে মানুষ কেন পাপের শাস্তি পাবে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন আল্লাহ বান্দার ভবিষ্যৎ জানেন ঠিকই কিন্তু বান্দা পাপ করবে না পূন্য করবে সেটা বান্দা নিজেই নির্ধারণ করে। তাই পাপের শাস্তি বান্দার প্রাপ্য।

কটূক্তি ৩৮ – যদি মানুষের স্বাধীনতা থাকে নিজের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করার তাহলে আল্লাহ ভবিষ্যৎ দ্রষ্টা হয় কিভাবে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ বান্দা পাপ পুণ্যের পথ নির্ধারণ করে ঠিকই তবে আল্লাহ ভাল মতই জানেন কোন পথে যাবে বান্দা। অবশ্যই আল্লাহ ভবিষ্যৎ দ্রষ্টা।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 08, 2014, 09:36:34 AM
কটূক্তি ৩৯ – কোরানের হিংস্র আয়াতগুলো উপস্থাপন করলেই মুমিনরা বলে এই আয়াতের শানে নুযুল জানতে হবে; বিচ্ছিন্ন ভাবে একটা আয়াত দিলে হবে না। ওই আয়াতে কি বলা আছে সেটাই কি এর অর্থ বুঝতে যথেষ্ট নয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন কোরান বোঝা এত সহজ নয়। এই জন্য কোন প্রেক্ষিতে কোন আয়াত নাজিল হয়েছে এবং এর আগে পরে কি আয়াত আছে তা অবশ্যই জানতে হবে। নাহলে বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যার আশঙ্কা থাকে।

কটূক্তি ৪০ – মুমিনরা কোন শানে নুযুল বা আগে পরের আয়াত ছাড়াই কোরানের শান্তিপূর্ণ আয়াত গুলো প্রচার করে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ আল্লাহ নিজেই বলেছেন,- ''আমি কোরাণ তোমাদের জন্য সহজ করে নাজিল করেছি যেন তোমরা তা বুঝতে পারো।'' যেখানে সরল ভাবেই অর্থ বোঝা যায় সেখানে শুধু শুধু শানে নুযুল, আগে পরের আয়াত এনে প্যাঁচানোর কি আছে?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 13, 2014, 08:49:17 AM
কটূক্তি ৪১ – ইসলামে যা যা বিশ্বাস করতে বলা হয় এবং এর স্বপক্ষে যেসব প্রমান দেখানো হয় তাঁর সবই মুহাম্মদের মুখ নিঃসৃত। এছাড়া আর কোন প্রমান নেই। তাহলে কিভাবে বুঝব মুহাম্মদ সত্যি বলেছে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ চোদ্দশত বছর ধরে শত শত কোটি মুসলিম উম্মাহ নবীজিকে বিশ্বাস করে আসছে। মিথ্যাবাদীর এত মানুষের বিশ্বাস রাখা সম্ভব হত না। এটাই প্রমান করে যে মুহাম্মদ(সঃ) সত্য বলেছেন।

কটূক্তি ৪২ – কয়েকশ কোটি মানুষ হাজার বছর ধরে বিশ্বাস করে আসছে যীশু ঈশ্বরের পুত্র, কৃষ্ণ একজন অবতার। বিশ্বাসীদের সংখ্যা দেখেই কি এসবে বিশ্বাস করতে হবে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ কয়েকশ কোটি মানুষ বিশ্বাস করলেই যে কিছু সত্য হয়ে যাবে তাঁর কোন যুক্তি নেই। বিশ্বাস ছাড়া কি আদৌ কোন প্রমান আছে তাদের বিশ্বাসের স্বপক্ষে?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 18, 2014, 07:12:26 AM
কটূক্তি ৪৩ – মুসলিমরা বলে ইসলাম নাকি বিজ্ঞানসম্মত ধর্ম। অথচ মেরাজ, চাঁদ দ্বিখণ্ডিত করা সহ অনেক বিষয় আছে ইসলাম ধর্মে যেগুলো মোটেও বিজ্ঞানসম্মত নয়। তাহলে কিভাবে ইসলাম ধর্মে বিশ্বাস করব?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ অনেক বিষয় আছে যেগুলো বিজ্ঞান দিয়ে ব্যাখ্যা করা সম্ভব নয়। এগুলো ঐশী পরিকল্পনার অংশ। আল্লাহর পক্ষে সবই সম্ভব এই বিশ্বাস রাখতে হবে।

কটূক্তি ৪৪ – যদি চোখ বন্ধ করে বিশ্বাস করতে হয় তাহলে তো যে কোন ধর্মেই বিশ্বাস স্থাপন করা যায়।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ চোখ বুজে বিশ্বাস করতে হবে কেন? যে ধর্ম বেশি সবচেয়ে বেশি বিজ্ঞান্সম্মত সেই ধর্মই গ্রহন করতে হবে। ইনশাল্লাহ ইসলাম ধর্মই পৃথিবীর সবচেয়ে বিজ্ঞানসম্মত ধর্ম।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 23, 2014, 03:18:37 PM
কটূক্তি ৪৫ – জান্নাতে পুরুষদের জন্য ৭২ টা হুর বা যৌনসঙ্গিনী রাখা হয়েছে। এর পরও তাদের জন্য গেলমান বা বালক যৌনসঙ্গী ব্যাবস্থা আছে। এটা কি বিকৃত শিশুকামীতার উদাহরন নয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন কোথায় বলা হয় নি গেলমানরা যৌনসঙ্গী। তাদের রাখা হয়েছে জান্নাতীদের খেদমতের জন্য। নাস্তিকরা মুসলিমদের বিভ্রান্ত করার জন্য ইচ্ছাকৃত ভাবে ইসলামকে বিকৃত করে।

কটূক্তি ৪৬ – পুরুষদের কামনা পূরনের জন্য স্ত্রীর পাশাপাশি ৭২ টা হুর আছে। অথচ নারীর জন্য এমন কোন ব্যাবস্থা নেই। কোন নারীর স্বামী যদি জান্নাতে না যায় তাহলে তো তাকে একা কাটাতে হবে। এতে কি নারীকে বঞ্চিত করা হয় নি?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইসলামে নারীর পূর্ণ যৌন অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে। পুরুষদের পাশাপাশি নারীদের চাহিদা পূরনের জন্য গেলমানদের ব্যাবস্থা করা হয়েছে। নাস্তিকরা নারীবাদী সেজে ধোঁকা দিয়ে নারীদের ইসলাম তথা জান্নাত থেকে বঞ্চিত করতে চায়।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 29, 2014, 03:32:18 PM
কটূক্তি ৪৭ – মুসলিম অধ্যুষিত বেশিরভাগ দেশেই বিধর্মীদের মূর্তি বা উপাসনালয় ভেঙে ফেলা হয়েছে এখনো হচ্ছে। অন্য ধর্মের প্রতি সহনশীলতা এত কম কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ যারা অন্ধবিশ্বাসে আক্রান্ত তাদের চোখ খুলে দেবার জন্য এ ছাড়া আর কোনো পথ আছে কি? কখনো দেখেছেন ওদের কথিত দেবতারা এসব ঠেকাতে পেরেছে? বরং এর পূজারীরাই ঠেকাতে চেষ্টা করেছে। এতেই প্রমানিত হয় কথিত দেবতাদের কোন শক্তি নেই।

কটূক্তি ৪৮ – কোথায় কোন মসজিদ ভাঙলে মুসলিমরা প্রতিবাদ করে কেন? তাঁরা কেন আল্লাহর প্রতিরোধের আশায় বসে থাকে না? আল্লাহ সর্বশক্তিমান হলে তো নিজেই মসজিদ ভাঙা ঠেকাতেন।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ মহান আল্লাহ মানুষকে তাঁর খলিফা অর্থাৎ প্রতিনিধি হিসাবে দুনিয়ায় রেখেছেন। অবশ্যই আল্লাহ সর্বশক্তিমান। কিন্তু কতিপয় বিধর্মীদের কাছে তিনি নিজ শক্তির পরীক্ষা দিবেন না। এর জন্য মুসলিমদের ঈমানী শক্তিই যথেষ্ট।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on February 04, 2014, 05:47:32 AM
কটূক্তি ৪৯ – ধার্মিকরা এখন নিজেদের ধর্মকে বৈজ্ঞানিক হিসেবে দাবী করে। কিন্তু স্রষ্টার অস্তিত্বের স্বপক্ষে কি বিজ্ঞানসম্মত কোন প্রমান দিতে পারবে তারা?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ স্টিফেন হকিংএর মত একজন বিজ্ঞানী তাঁর ‘অ্যা ব্রিফ হিস্ট্রি অফ টাইম’ গ্রন্থে স্রষ্টার অস্তিত্ব স্বীকার করেছেন। তাঁর মানে স্রষ্টাকে কাল্পনিক বলে উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

কটূক্তি ৫০ – স্টিফেন হকিং কাব্যিক উপমা হিসেবে ঈশ্বরের নাম ব্যাবহার করেছিলেন। কিন্তু 'দ্য গ্রান্ড ডিজাইন' গ্রন্থে তিনি ঈশ্বরের অস্তিত্ব অস্বীকার করেছেন। তাহলে ধার্মিকরা কেন এখনো কাল্পনিক স্রষ্টার আরাধনা করে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ স্রষ্টা মানুষের অনুধাবনের বাইরে। তিনি না চাইলে কোন বিজ্ঞানীর পক্ষেই তাঁর অস্তিত্ব বের করা সম্ভব না। আর হকিং তো একটা পাগল। ওর মত পাগলের-ছাগলের কথায় স্রষ্টার অস্তিত্ব অপ্রমানিত হয় না। ওকে পাগলাগারদে রেখে চিকিৎসা করানো উচিৎ।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on February 17, 2014, 06:27:24 AM
কটূক্তি ৫১ – কোরানে সূরা লূক্বমান ৩৪ নাম্বার আয়াতে বলা হয়েছে, গর্ভের সন্তান কি হবে তা একমাত্র আল্লাহ জানে। কিন্তু বর্তমানে গর্ভাবস্থায় সন্তানের লিঙ্গ নির্ণয় করা সম্ভব। এতে কি কোরআন ভুল প্রমানিত হয় না?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ উক্ত আয়াতে মোটেও লিঙ্গের দিকে ইঙ্গিত করা হয় নি। ঈঙ্গিত করা হয়েছে বাচ্চার চরিত্র কী হবে। সে কি পুণ্যবান হবে না পাপী হবে, সে জান্নাতে যাবে না জাহান্নামে। নাস্তিকরা মিথ্যা তাফসির নিয়ে আসে কোরনের ভুল ধরার জন্য।

কটূক্তি ৫২ – ৩১ঃ৩৪ আয়াতের অর্থ যদি হয়, সন্তানের চরিত্র সম্পর্কে আল্লাহ সব জানেন তাহলে সন্তানের ভবিষ্যৎ কর্মকাণ্ডের জন্য তাকে দায়ী করা কতটুকু যুক্তিযুক্ত? তার তো আল্লাহর জানা পথের বাইরে যাবার ক্ষমতা নেই।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ আসলে উক্ত আয়াতে সন্তানের লিঙ্গের কথা বলা হয়েছে। যদিও বর্তমানে মাতৃজঠরে গঠন পূর্ণ হবার পর ছেলে না মেয়ে তা জানা যায় কিন্তু মহান আল্লাহ তায়ালা ভ্রুন অবস্থাতেই জানেন সন্তানের লিঙ্গ কি। নাস্তিকরা এই সরল বিষয়টি অযথা প্যাঁচায় মুসলিমদের বিভ্রান্ত করার জন্য।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on February 17, 2014, 06:30:21 AM
কটূক্তি ৫৩ – মুসলিমরা ইহুদী, খ্রিস্টানদের প্রতি প্রচণ্ড ঘৃণা পোষণ করে, তাদের নাম গালি হিসেবে উচ্চারন করে। যদিও অনেক ইহুদী, খ্রিস্টান ধর্মান্ধ কিন্তু তাদের জন্য পুরো সম্প্রদায়কে ঘৃণা করা কিভাবে গ্রহনযোগ্য হতে পারে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইহুদী নাসারারা সবসময়ই ইসলাম ও মুসলিমদের প্রতি ষড়যন্ত্র করে এসেছে। হতে পারে সবাই খারাপ না কিন্তু তারা একই ধর্মের অনুসারী। যারা ভাল তাদের উচিৎ ঘৃণিত ধর্ম ত্যাগ করা।

কটূক্তি ৫৪ – ইসলাম প্রতিষ্ঠার নামে, জিহাদের নামে যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে সেসব জঙ্গীদের মুসলিম সন্ত্রাসী বললে মুসলিমরা আপত্তি করে কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন গুটিকয়েক মুসলিম নামধারী জঙ্গীদের জন্য সমগ্র মুসলিমজাতিকে দায়ী করা কখনোই গ্রহনযোগ্য নয়। দুনিয়ার সকল মুসলিম খারাপ নয়, যারা খারাপ তাদের দায় সবাই নিবে কেন? এরকম সাম্প্রদায়িক ঘৃণা ছড়ানো কখনোই গ্রহনযোগ্য নয়।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: Jupiter Joyprakash on February 20, 2014, 04:06:14 AM
ভ্রূণ অবস্থায় কেন? তার চেয়েও আগে DNA test করে মানুষেও তো বলে দিতে পারে।  ;D
কটূক্তি ৫১ – কোরানে সূরা লূক্বমান ৩৪ নাম্বার আয়াতে বলা হয়েছে, গর্ভের সন্তান কি হবে তা একমাত্র আল্লাহ জানে। কিন্তু বর্তমানে গর্ভাবস্থায় সন্তানের লিঙ্গ নির্ণয় করা সম্ভব। এতে কি কোরআন ভুল প্রমানিত হয় না?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ উক্ত আয়াতে মোটেও লিঙ্গের দিকে ইঙ্গিত করা হয় নি। ঈঙ্গিত করা হয়েছে বাচ্চার চরিত্র কী হবে। সে কি পুণ্যবান হবে না পাপী হবে, সে জান্নাতে যাবে না জাহান্নামে। নাস্তিকরা মিথ্যা তাফসির নিয়ে আসে কোরনের ভুল ধরার জন্য।

কটূক্তি ৫২ – ৩১ঃ৩৪ আয়াতের অর্থ যদি হয়, সন্তানের চরিত্র সম্পর্কে আল্লাহ সব জানেন তাহলে সন্তানের ভবিষ্যৎ কর্মকাণ্ডের জন্য তাকে দায়ী করা কতটুকু যুক্তিযুক্ত? তার তো আল্লাহর জানা পথের বাইরে যাবার ক্ষমতা নেই।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ আসলে উক্ত আয়াতে সন্তানের লিঙ্গের কথা বলা হয়েছে। যদিও বর্তমানে মাতৃজঠরে গঠন পূর্ণ হবার পর ছেলে না মেয়ে তা জানা যায় কিন্তু মহান আল্লাহ তায়ালা ভ্রুন অবস্থাতেই জানেন সন্তানের লিঙ্গ কি। নাস্তিকরা এই সরল বিষয়টি অযথা প্যাঁচায় মুসলিমদের বিভ্রান্ত করার জন্য।

Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on February 20, 2014, 03:25:58 PM
কটূক্তি ৫৫ – ইসলামিক রাষ্ট্রে অমুসলিমদের ধর্মীয় অধিকার নেই কেন? কেন অমুসলিমদের উপাসনালয় তৈরি করার অনুমতি দেওয়া হয় না?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন দুইয়ে দুইয়ে চার যেমন সত্য ইসলামও তেমন সত্য ধর্ম। আল্লাহ কোরানে বলেছেন তিনি অন্য কোন ধর্ম গ্রহন করবেননা। কেউ যদি বলে দুইয়ে দুইয়ে তিন তাহলে কি আপনি তাকে শিক্ষক হিসেবে গ্রহন করবেন? ইসলামিক রাষ্ট্রেও তাই অমুসলিমদের প্রকাশ্যে মিথ্যা ধর্ম পালনের অধিকার নেই। তবে তারা তাদের গৃহে ধর্ম পালন করতে পারে।

কটূক্তি ৫৬ – মুসলিমরা কেন অমুসলিম প্রধান রাস্ট্রেও ধর্মীয় অধিকার চায়? মসজিদ বানাতে চায়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ অমুসলিমরা তাদের ধর্মীয় সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত নয়, কিন্তু মুসলিমরা ইসলামের সত্যতা সম্পর্কে শতভাগ নিশ্চিত। তাই আল্লাহ্‌র জমিনে যে কোন জায়গায় মুসলিমদের ধর্ম পালনের অধিকার আছে।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on March 05, 2014, 05:13:26 PM
কটূক্তি ৫৭ – একজন বিজ্ঞানী’র কর্মের সাথে তার ধর্মীয় পরিচয়ের কোন সম্পর্ক নেই। তবু কেন মুসলিম বিজ্ঞানী বলা হয়? তাদের গবেষণার সাথে ব্যাক্তিগত ধর্মের সম্পর্ক কী?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ মুসলিম মানে ইসলামের অনুসারী। সবসময়ই অভিযোগ করা হয় ইসলাম নাকি জ্ঞান বিমুখ করে রাখে মানুষকে। এই অভিযোগ আদৌ সত্য নয়। ইসলাম মানুষকে জ্ঞান চর্চার প্রতি আগ্রহী করে তার প্রমান মুসলিম বিজ্ঞানীগণ।

কটূক্তি ৫৮ – আইনস্টাইন, নিউটন, হকিং'দেরকে কি তাহলে ইহুদী বা খ্রিস্টান বিজ্ঞানী হিসেবে পরিচয় দেওয়া হবে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ একজন বিজ্ঞানীর কর্মের সাথে তার ধর্মীয় পরিচয়ের কোন সম্পর্ক নেই। এমনতো নয় তারা ধর্মীয় গ্রন্থ থেকে কিছু আবিষ্কার করেছে। তাহলে শুধু শুধু কেন তাদের ইহুদী বা খ্রিস্টান বিজ্ঞানী বলা হবে?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on March 11, 2014, 02:37:24 PM
কটূক্তি ৫৯ – কোন মুসলিম যদি নিজের লিঙ্গ পরিবর্তন করে তাহলে তাকে কী করা হবে? কোরান হাদীসে তো এই বিষয়ে কোন বিধান নেই।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ যেহেতু কোরান হাদীসে লিঙ্গান্তর প্রসঙ্গে কিছু বলা হয়নি তাই এটি মুসলিমদের জন্য নিষিদ্ধ বলে গণ্য করতে হবে।

কটূক্তি ৬০ – টেলিভিশন সম্পর্কে তো কোরান হাদীসে কিছু বলা হয় নি। তাহলে ইসলাম প্রচারের জন্য কেন টিলিভিশন ব্যাবহার করা হয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ যেহেতু টেলিভিশন সম্পর্কে কোরান হাদীসে কিছু বলা হয় নি তাই টেলিভিশন নিষিদ্ধ বলা যাবে না।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on May 10, 2014, 06:37:23 AM
কটূক্তি ৬১ – মুসলিম অধ্যুষিত দেশে অমুসলিমদের উপর ইসলাম চাপিয়ে দেওয়া হয় কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইসলাম কোন গৎবাঁধা প্রার্থনা কেন্দ্রিক ধর্ম নয়। এটি একটি পূর্ণাঙ্গ
জীবন ব্যবস্থা, যা সকল ধর্মের মানুষের জন্য প্রযোজ্য।

কটূক্তি ৬২ – ইসলাম সকল ধর্মের মানুষের জন্য প্রযোজ্য হলে অমুসলিমরা কেন ইসলাম নিয়ে কথা বলতে পারবে না?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ অমুসলিমদের কোন অধিকার নেই ইসলাম নিয়ে কথা বলার। তারা নিজ ধর্মের সমালোচনা করতে পারে না? কেন ইসলাম ধর্ম নিয়ে এত চুলকানি তাদের?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on May 22, 2014, 02:41:52 PM
কটূক্তি ৬৫ – মুসলিমদের ধর্মানুভূতি এত তীব্র কেন? অন্য ধর্মাবলম্বীদের তো সামান্য কথায় ধর্মানুভূতি আহত হয় না; কল্লা দাবী করে না, সাম্প্রদায়িক হামলা করে না।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন, অমুসলিমদের সাথে মুসলিমদের ঈমানের তুলনা চলে না। অমুসলিমরা তাদের ধর্ম সম্পর্কে উদাসীন কারন তারা জানে তাদের ধর্ম মিথ্যা, তাই তাদের অনুভূতিও নেই। অপরদিকে মুসলিমরা ইসলামের ইজ্জত নিয়ে সবসময়ই সোচ্চার। এটা ইসলামের সত্যতা প্রমান করে।

কটূক্তি ৬৬ – সারা বিশ্বের মুসলিমরা কেন এতো বেশি আন্তঃসংঘাতে লিপ্ত? অন্য ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে তো এতো সংঘাত নেই।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইহুদী-নাসারা'রা ষড়যন্ত্র করে মুসলিমদের ইসলাম থেকে দুরে সরিয়ে রাখছে। তাই তাদের ঈমান দুর্বল হয়ে গেছে এবং নিজেরা সংঘাতে লিপ্ত হচ্ছে। ইহুদী-নাসারারা জানে তাদের ধর্ম মিথ্যা তাই তারা একজোট হয়ে ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এটাই প্রমান করে ইসলাম সত্য ধর্ম।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on May 28, 2014, 02:24:51 PM
কটূক্তি ৬৭ – আল্লাহ জ্বিন এবং মানুষকে শুধুই তাঁকে সেজদা করার জন্য সৃস্টি করেছেন। তাহলে আল্লাহ কেন ইবলিশকে আদমকে সেজদাহ করার নির্দেশ দিলেন? এটা কি শিরকের সাথে তুলনীয় নয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ কোরানের ২ : ৩৪ , ২০ : ১১৬ , ১৫ : ৩০-৩১ অনুযায়ী ইবলিশ ফেরেশতা। আর ফেরেশতাদের আল্লাহর নির্দেশ পালন করার জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে।

কটূক্তি ৬৮ – ইবলিশ ফেরেশতা হলে আল্লাহর নির্দেশ অমান্য করল কিভাবে? ফেরেশতাদের তো আল্লাহর নির্দেশ অমান্য করার ক্ষমতা নেই।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ কোরানের ১৮ নম্বর সূরা (কাহফ) ৫০ নম্বর আয়াত অনুযায়ী ইবলিশ জ্বিন। আর জ্বিন এবং মানুষকে আল্লাহ তার নির্দেশ অমান্য করার ক্ষমতা দিয়েছেন।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on July 05, 2014, 01:49:37 PM
কটূক্তি ৭১ – মুসলিমরা দাবী করে বিজ্ঞানীরা নাকি কোরান থেকে সূত্র নিয়ে অনেক কিছু আবিস্কার করেছে। কিন্তু আজ পর্যন্ত কোন বিজ্ঞানী এমন কোন তথ্য দিয়েছেন বলা জানা যায়নি। আর পুরো কোরআন ঘেটে কোন বৈজ্ঞানিক তত্ব্ব খুঁজে পাওয়া যায় না।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইহুদী-নাসারা বিজ্ঞানীরা কখনোই স্বীকার করবে না যে তারা কোরান থেকে জ্ঞান আরহন করে। তাহলে তাদের চৌর্যবৃত্তি ধরা পড়ে যাবে। আর পবিত্র কোরআন বিজ্ঞানের বই নয় যে সরাসরি তত্ত্ব দেওয়া থাকবে তবে অনেক আবিস্কারের ইঙ্গিত দেওয়া আছে যেগুলো কাজে লাগিয়েছে বিজ্ঞানীরা।

কটূক্তি ৭২ – এধরনের ইঙ্গিতপূর্ণ বাণী তো অন্যান্য ধর্মগ্রন্থেও আছে। যেগুলোর বিভিন্ন অর্থ দাড় করানো যায় এবং চাইলে বিজ্ঞানের সাথেও মেলানো যায়। তাহলে তো এটাও দাবী করা যায় বিজ্ঞানীরা এসব গ্রন্থ থেকেই আবিস্কার করেছে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন গোঁজামিল দিয়ে বিজ্ঞানের সাথে মেলালেই তাকে বৈজ্ঞানিক গ্রন্থ বলা যায় না। কোন বিজ্ঞানী কি বলেছে যে তারা এসব গ্রন্থ থেকে আবিস্কার করেছে, কোন প্রমান আছে এর পক্ষে?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on August 04, 2014, 04:54:49 PM
কটূক্তি ৭৫ – জীবন-যাপনের প্রতিটি উপাদান মানুষ নিজ যোগ্যতা বলে অর্জন করে। অথচ বিশ্বাসীরা সব কিছুর জন্য স্রষ্টাকে কৃতজ্ঞতা জানায় কেন? স্রষ্টার দৃশ্যমান ভূমিকা কী?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন মানুষের অর্জনগুলো আদতে স্রষ্টারই অবদান। প্রকৃতিতে যা কিছু পাওয়া যায় সব স্রষ্টার দান। আর এসব কাজে লাগানোর জ্ঞানও স্রষ্টা দিয়েছেন। তাই সব কিছুর কৃতিত্ব মূলত স্রষ্টার।

কটূক্তি ৭৬ – মানুষের সকল অর্জনের কৃতিত্ব স্রষ্টার হলে ব্যর্থতার দায় কেন স্রষ্টার নয়? কেন বিশ্বাসীরা স্রষ্টার নিন্দা না করে মানুষকে দায়ী করে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন প্রচেষ্টা যখন মানুষের ব্যর্থতার দায়ভারও মানুষেরই। স্রষ্টা মানুষকে জ্ঞানবুদ্ধি দিয়েছেন তা সঠিক ভাবে কাজে লাগাতে না পারলে স্রষ্টার দোষ কী?
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: Itch Guard on August 12, 2014, 03:49:07 AM
আপনি তো পাগল করে দিয়েছেন স্যার। আপনার লেখায় রেপু দিতে এখানে রেজিস্ট্রেশন করলাম। আগে তিনবার রিজেক্ট হয়েছি। অনেক ফোরামেই আমার আসাযাওয়া আছে কিন্তু এইটার মত কড়া নিয়ম কানুন কোথাও দেখিনি। শেষে Admin কে ইমেল করে রিকোয়েস্ট করাতে তিনি দয়া করে দরজা খুলেছেন।

তবে নিয়ম কানুন যেমনই হোক, লেখাগুলো সবই ফাস্টোকেলাস। পরের দাঁত ভাঙা জবাবের জন্য অপেক্ষায় রইলাম।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: AmiJoker on August 16, 2014, 03:19:18 AM
আপনার লেখ পড়ে আমি দাদা হাসতে হাস্তে উলটে পড়ে গেছি। সবগুলো এখনও পড়া হয়নি। তবে আপনি চালিয়ে যান দাদা। আমি পেট ফেটে মারা গেলে আপনার কোনো দায়িত্ব নেই বলে আগাম জানিয়ে রাখলাম।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on August 29, 2014, 07:03:45 AM
কটূক্তি ৭৭ – নিজ নিজ ধর্মকে বিজ্ঞানসম্মত দাবী করলেও সিংহভাগ ধার্মিকই বিবর্তনবাদ মানতে চায় না। কারন তা সৃষ্টিতত্ত্ব বাতিল করে দেয়।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ বিবর্তন হচ্ছে বিজ্ঞানীদের তৈরি গালগল্প যার কোন ভিত্তি নেই। বানরের পেট থেকে মানুষ জন্মাতে কেউ কখনো দেখেছে? আর মানুষ যদি বানর থেকেই আসে তাহলে দুনিয়ায় এখনো বানর আছে কেন?

কটূক্তি ৭৮ – বিবর্তন তত্ত্বে বলা হয়নি মানুষ বানর থেকে এসেছে। মানুষ ও বানর একটি ‘সাধারণ পূর্ব-পুরুষ’ থেকে এসেছে।। যা বানর জাতীয় (প্রাইমেট) হলেও আজকের বানর (মাঙ্কি) নয়। এর স্বপক্ষে অনেক ফসিল পাওয়া গিয়েছে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ যে তথাকথিত পূর্বপুরুষের কথা বলা হয়েছে আজ পর্যন্ত সেরকম কোন প্রাণী দেখাতে পারে নি বিজ্ঞানীরা। কিছু হাড় গোড় দেখালেই তো প্রমানিত হয় না এগুলোই মানুষের পূর্বপুরুষ।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on August 29, 2014, 07:04:39 AM
কটূক্তি ৭৯ – ইসলামকে জঙ্গি, সন্ত্রাসের ধর্ম বললেই কতল করার দাবী তোলে মোল্লারা। এটাই কি প্রমান করে না যে ইসলাম কতটা হিংস্র ধর্ম?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম হচ্ছে উদার, শান্তির ধর্ম। ইসলামের বিরুদ্ধে কথা বলা মানে শান্তির বিরুদ্ধে কথা বলা। আর যে শান্তির বিরুদ্ধে কথা বলে সে কঠোর শাস্তি প্রাপ্য।

কটূক্তি ৮০ – যেসব মুসলিম জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় তাদেরকেও কেন কতল করতে চায় মোল্লারা? তারা তো তথাকথিত শান্তিপূর্ণ ইসলামেরই প্রচার করে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম শুধুই প্রার্থনার ধর্ম নয়। জ্বিহাদ ইসলামের অবিচ্ছেদ্য অংশ। যারা জ্বিহাদের বিরুদ্ধে কথা বলে, জ্বিহাদীদের জঙ্গি, সন্ত্রাসী বলে তারা আসলে মুনাফিক। তারা কঠোর শাস্তি প্রাপ্য।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on September 03, 2014, 03:09:06 PM
কটূক্তি ৮১ – ইসলামের তথাকথিত ভালো দিকগুলো নিয়ে গলাবাজি করলেও প্রয়োগের ব্যাপারে মোল্লাদের আগ্রহ নেই। যেমন, উত্তরাধিকার সম্পত্তিতে মেয়ে সন্তানের অধিকার ছেলে সন্তানের অর্ধেক হলেও আমাদের দেশে তা তেমন মানা হয় না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মেয়েদের বঞ্চিত করা হয়। অথচ এই নিয়ে কারো উচ্চবাচ্য নেই।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ আলেমদের দায়িত্ব হলো ইসলাম সম্পর্কে মানুষকে অবিহিত করা। তাঁরা তা করেছেন। কোন মুসলিম যদি তা না মানেন তাহলে আলেমরা কী করতে পারেন? ইসলাম জোর জবরদস্তির ধর্ম নয়।

কটূক্তি ৮২ – হিল্লা বিয়ে, দোররা, পর্দা, মুরতাদ ঘোষণা এসব নিয়ে মোল্লারা এমন বাড়াবাড়ি করে কেন? তারা যা বলার বলেছে। যার ইচ্ছে পালন করবে যার ইচ্ছে নেই পালন করবে না। মানুষের স্বাধীনতায় কেন হস্তক্ষেপ করা?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলাম কোন স্বেচ্ছাতারিতার ধর্ম নয় যে যেভাবে ইচ্ছে চলা যাবে। অবশ্যই প্রত্যেককে ইসলামী নিয়ম কানুন মেনে চলতে হবে; না চললে তাকে বাধ্য করতে হবে। আলেমদের এখতিয়ার আছে প্রত্যেককে বাধ্য করা।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on November 24, 2014, 03:59:29 PM
কটূক্তি ৮৩ – ইসলামের সাথে অন্য ধর্মের তুলনা করলে মুমিনরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে কেন? সব ধর্মের তুলনামূলক পর্যালোচনা করলে সমস্যা কী?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইসলামের সাথে অন্য ধর্মগুলোর তুলনার প্রশ্নই আসেনা। ইসলাম শুধুই একটা আচার সর্বস্ব ধর্ম নয় আল্লাহ মনোনিত একমাত্র দ্বীন বা জীবন ব্যাবস্থা। ইসলাম নিজেই নিজের তুলনা। অন্য ধর্মের সাথে তুলনা ইসলামের জন্য অমর্যাদাস্বরূপ।

কটূক্তি ৮৪ – ইসলামের সমালোচনা করলে মুমিনরা কেন দাবী করে অন্য ধর্মের সমালোচনাও করতে হবে? অন্য ধর্মে ভুল থাকলে কি ইসলামের ভুলগুলো গ্রহনযোগ্য হয়ে যায়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন নাস্তিকরা শুধুই ইসলামের সমালোচনা করে এ থেকেই বুঝা যায় তার আদৌ নাস্তিক নয় ইসলাম বিদ্বেষী হিন্দু/কাফের। দুনিয়াতে কি আর কোন ধর্ম নেই শুধু ইসলাম নিয়ে টানাহেঁচড়া কেন? সত্যিকারের নাস্তিক হলে সব ধর্মের তুলনামূলক বিচার করতো।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on November 24, 2014, 04:02:37 PM
কটূক্তি ৮৫ – নাস্তিকদের ছদ্মনাম ব্যাবহারে মুমিনদের আপত্তি কেন? নাম যাই হোক ব্যাক্তির লেখাই তো মূখ্য। ছদ্মনাম ব্যাবহার করলে কী লেখার যৌক্তিকতা ক্ষুন্ম হয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ নাস্তিকরা অনেক বড় বড় কথা বলে অথচ প্রকাশ্যে নিজের পরিচয় দিতেই ভয় পায়। তারা নিজেদের সত্যবাদী মনে করলে আসল পরিচয়ে আসুক। আসলে নাস্তিকের আড়ালে সবাই ইসলাম বিদ্বেষী হিন্দু তাই ছদ্মনাম ব্যাবহার করে।

কটূক্তি ৮৬ – প্রকাশ্যে কেউ নাস্তিকতার প্রচার করলে বা কোন মুসলিম ইসলাম ত্যাগের ঘোষণা দিলে মুমিনরা কি মেনে নেবে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ৯৭ ভাগ মুসলিমের দেশে প্রকাশ্যে নাস্তিকতার প্রচার কখনোই বরদাস্ত করা হবে না। কোন নাস্তিক এই ঘোষণা দিলে তৌহিদি জনতা তাদের ঈমানি শক্তি দিয়ে প্রতিরোধ করবে। আর ইসলাম ত্যাগকারীকে অবশ্যই কতল করা হবে।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 02, 2014, 09:22:33 AM
কটূক্তি ৮৭ – ইসলামে শুকরের মাংস খাওয়া নিষিদ্ধ কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ যে যা খায়, সে সেই মত আচরন করে। যেমন অমুসলিমরা শুকরের মাংস খায় বলে তাদের স্বভাব শুকরের মত। খ্রিস্টানদের ডান্স পার্টি গুলোতে নেচে নেচে উত্তেজনার উত্তুঙ্গে উঠে একে অপরের সাথে শোয়া’র জন্য বউ বদল করে নেয়; যেমনটা শুকর করে থাকে।

কটূক্তি ৮৮ – কোন প্রাণীর মাংস খেলেই যদি সেই প্রাণীর মত আচরন করে কেউ, তাহলে মুসলিমরা গরু-ছাগল খায় কেন? তাদের আচরন কি গরু-ছাগলের মতো? তারা কি গরুর মতো সঙ্গম করে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ কোন প্রাণীর মাংস খেলেই যে সেই প্রাণীর মত আচরন করবে এর পেছনে কোন যুক্তি-প্রমান নেই। মানুষ বেঁচে থাকার জন্যই প্রাণীর মাংস খায়। এটার সাথে আচরনের সম্পর্ক নেই।

এবারের দাঁত ভাঙা কার্টেসি Dr Zakir Naik
 
বি.দ্র. কটূক্তির বদলে দাঁত ভাঙা জবাব গুলো আমার নয়। বিভিন্ন সময়ে মুমিনগণ যে জবাব দিয়েছেন তা ছড়িয়ে দিচ্ছি শুধু। আপনারাও সবাই শেয়ার করে নাস্তিকদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জবাব দিন, ঈমান পোক্ত করুন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 17, 2014, 09:22:33 AM
কটূক্তি ৮৯ – মুসলিমরা অমুসলিমদের দেশের নাগরিকত্ব নিয়ে তাদের বাক-স্বাধীনতা, ব্যাক্তি-স্বাধীনতা স্যাকুলারিজমের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেয়; শরীয়া আইন প্রবর্তনের কথা বলে। 

দাঁত ভাঙা জবাবঃ এইসব ব্যাক্তি-স্বাধীনতা, বাক-স্বাধীনতা, স্যাকুলারিজম ইসলামের দৃষ্টিতে অগ্রহনযোগ্য। যে কোন অবস্থাতেই একজন মুসলমানের ঈমানি দায়িত্ব হচ্ছে ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য জ্বিহাদ করা।

কটূক্তি ৯০ – অমুসলিমরা তাদের দেশে ইসলাম-শরীয়া প্রসার নিষিদ্ধ করলে মুসলিমরা আপত্তি জানায় কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন নিজ ধর্ম পালন করা, প্রচার করা ব্যাক্তিস্বাধীনতা-বাকস্বাধীনতার অংশ। ইহুদী-নাসারারা বলে তাদের দেশে সবাই স্বাধীন তাহলে মুসলিমরা দ্বীনের প্রসার ঘটাতে পারবে না কেন?

এবারের দাঁত ভাঙা কার্টেসি পিনাকী লেভেলের সুশীলরা...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on December 29, 2014, 09:22:33 AM
কটূক্তি ৯১ – আলকায়েদা, তালেবান, আইএসআইএস, বোকো হারাম ইসলামের নামে এতো সন্ত্রাসী সংগঠন মানবতা বিরোধী অপরাধ করছে; মুসলিমরাও রেহাই পাচ্ছে না। তারপরও সারা বিশ্বের মুসলিমরা নিরব কেন?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ এরা কেউই সহি মুসলিম না; এদের কর্মকাণ্ডের সাথে সহি ইসলামের সম্পর্ক নেই। ইহুদি-নাসারাদের মোড়ল আম্রিকা এদের তৈরি করেছে ইসলাম ও মুসলিমদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য।


কটূক্তি ৯২ – আম্রিকা-ন্যাটো জঙ্গিদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নিলে মুসলিমরা প্রতিবাদ করে কেন?


দাঁত ভাঙা জবাবঃ মুসলিমরা একে অপরের ভাই। একজন মুসলিমের উপর হামলা চালানো মানে বিশ্ব মুসলিম ভ্রাতৃত্বের উপর হামলা চালানো; ইসলাম মুছে দেবার নিশানা। এসবের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা প্রত্যেক মুসলিমের জন্য ঈমানি দায়িত্ব...

 Shantanu Adib (https://www.facebook.com/shantanu.adib) এর স্ট্যাটাস থেকে প্রাপ্ত আইডিয়া।

বি.দ্র. কটূক্তির বদলে দাঁত ভাঙা জবাব গুলো আমার নয়। বিভিন্ন সময়ে মুমিনগণ যে জবাব দিয়েছেন তা ছড়িয়ে দিচ্ছি শুধু। আপনারাও সবাই শেয়ার করে নাস্তিকদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জবাব দিন, ঈমান পোক্ত করুন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 03, 2015, 09:22:33 AM
কটূক্তি ৯৩ – মুমিনরা প্রায়ই দাবী করে নাস্তিকরা ইসলাম সম্পর্কে কিছু না জেনে সমালোচনা করে। অথচ প্রতিটি ক্ষেত্রে নাস্তিকরা কোরান-হাদীসের সূত্র দিয়ে সমালোচনা করে।

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন জানার কোন শেষ নাই। দু'পারা কোরান-হাদীস পড়লেই ইসলাম বোধগম্য হয়ে যায় না। ইসলামের মাহাত্ম্য বুঝতে হলে আপনাকে আরো গভীর ভাবে পাঠ করতে হবে। তাহলেই ইসলামের শ্রেষ্ঠত্ব বুঝতে পারবেন।

কটূক্তি ৯৪ – বেশিরভাগ মুমিন না কোরান-হাদীস না পড়েই জন্মসূত্রে প্রাপ্ত বিশ্বাস থেকে ইসলামের শ্রেষ্ঠত্ব দাবী করে।


দাঁত ভাঙা জবাবঃ না জেনে ইসলাম বিশ্বাস করা যাবে না এমন কোন কথা নেই। ঈমান হচ্ছে গভীর অনুভূতির বিষয়। যা সবার পক্ষে উপলব্ধি করা সম্ভব না।


বি.দ্র. কটূক্তির বদলে দাঁত ভাঙা জবাব গুলো আমার নয়। বিভিন্ন সময়ে মুমিনগণ যে জবাব দিয়েছেন তা ছড়িয়ে দিচ্ছি শুধু। আপনারাও সবাই শেয়ার করে নাস্তিকদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জবাব দিন, ঈমান পোক্ত করুন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 14, 2015, 02:22:33 PM
কটূক্তি ৯৫ – মুহাম্মদকে নিয়ে কার্টুন আঁকলে কেন জঙ্গি হামলা চালিয়ে খুন করতে হবে? কার্টুন আঁকার প্রতিবাদ তো কার্টুন এঁকেই করা যায়।
 

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন ইহুদি-নাসারাদের মোড়ল আমেরিকা কিছু মস্তিষ্ক বিকৃত লোককে দিয়ে এইসব হামলা সৃষ্টি করায় নিজেদের স্বার্থে। দুনিয়ার বেশিরভাগ মুসলিমই এসব সমর্থন করে না।

কটূক্তি ৯৬ – তারমানে মুহাম্মদের কার্টুন আঁকলে বা ইসলামের সমালোচনা-ব্যাঙ্গ করলে মুসলিমরা স্বাভাবিক ভাবে নিবে?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ মুহাম্মদ (সঃ) হচ্ছেন সর্বকালের শ্রেষ্ঠ মানুষ। মুসলিমরা তাকে নিজের জীবনের চেয়েও ভালবাসে। তার সম্মান হানি করা মানে মুসলিম বিশ্বের উপর আঘাত যা মুসলিমরা কখনোই মেনে নিবে না। ঈমানি শক্তি দিয়ে জবাব দিবে।

 Asif Mohiuddin (https://www.facebook.com/atheist.asif) এর স্ট্যাটাস থেকে প্রাপ্ত আইডিয়া

 বি.দ্র. কটূক্তির বদলে দাঁত ভাঙা জবাব গুলো আমার নয়। বিভিন্ন সময়ে মুমিনগণ যে জবাব দিয়েছেন তা ছড়িয়ে দিচ্ছি শুধু। আপনারাও সবাই শেয়ার করে নাস্তিকদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জবাব দিন, ঈমান পোক্ত করুন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 19, 2015, 08:22:33 PM
কটূক্তি ৯৭ – মুমিনরা দাবী করে ইসলাম নারীকে সর্বোচ্চ সম্মান দেয়। নারীর শরীর পুরোপুরি ঢেকে রাখতে বাধ্য করে কীভাবে নারীকে সম্মান করা হয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ দেখুন পর্দা নারীর জন্য বাধ্যবাধকতা নয়; পছন্দ। ইসলামে নারীকে পর্দা বাছাই করার অধিকার দেয়।


কটূক্তি ৯৮ – তারমানে নারীরে চাইলে পর্দা না করেও চলতে পারবে?


দাঁত ভাঙা জবাবঃ নারীরা পর্দা না করে চললে সমাজ নষ্ট হয়, বেলেল্লাপনা-অশ্লীলতার দেখা দেয়, পুরুষদের চরিত্র নষ্ট হয়। তাই অবশ্যই নারীকে পর্দার ভিতর থাকতে হবে। এক্ষেত্রে দ্বিমতের কোন সুযোগ নেই।
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on January 29, 2015, 07:22:33 PM
কটূক্তি ৯৯– ধর্ম একান্ত ব্যাক্তিগত আচার হলে ইসলামকে কেন রাজনীতিতে ব্যাবহার করা হয়? কেন সবার উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ ইসলাম শুধুই আচার সর্বস্ব ব্যাক্তিগত ধর্ম নয়। এটি পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান। রাস্ট্র পরিচালনার সব নিয়ম ইসলামে আছে।

কটূক্তি ১০০ – ইসলাম রাজনৈতিক মতবাদ হলে ইসলামের সমালোচনা করলে কেন ধর্মানুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগ আনে মুমিনরা?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ মানুষের একান্ত ব্যাক্তিগত ধর্মীয় বিশ্বাসে আঘাত আনার অধিকার কারো নেই।


বি.দ্র. কটূক্তির বদলে দাঁত ভাঙা জবাব গুলো আমার নয়। বিভিন্ন সময়ে মুমিনগণ যে জবাব দিয়েছেন তা ছড়িয়ে দিচ্ছি শুধু। আপনারাও সবাই শেয়ার করে নাস্তিকদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জবাব দিন, ঈমান পোক্ত করুন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: ওয়াশিকুর বাবু on February 16, 2015, 09:22:33 PM
কটূক্তি ১০১ – গুটিকয়েক জঙ্গিরা ইসলামের নামে যেসব সন্ত্রাস করে তা কোরান-হাদীস দ্বারাই স্বীকৃত। তাহলে কেন বলা যাবে না জঙ্গিদের কর্মকাণ্ডই ইসলামের প্রকৃত রূপ?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ সিংহভাগ মুসলিমদের সাথে জঙ্গিবাদের সম্পর্ক নেই। সেই তুলনায় স্বল্প সংখ্যক সালাফিদের কর্মকাণ্ড যারা সহি ইসলাম বলে প্রচার করতে চায় তারা মূলত মৌলবাদের হাতকে শক্ত করে। এরা সালাফি সেক্যুলার। সালাফি মুসলিমদের সাথে এরাই জঙ্গিবাদের জন্য দায়ী।

কটূক্তি ১০২ – উত্তরাধিকার সম্পত্তিতে কন্যার অধিকার থাকলেও অধিকাংশই মুসলিমই তা মান্য করে না। তাহলে কি বলতে হবে উত্তরাধীকার সম্পত্তিতে কন্যা শিশুর অধিকার ইসলামের অংশ নয়?

দাঁত ভাঙা জবাবঃ কন্যা শিশু উত্তরাধিকার সম্পত্তিতে হক আছে তা ইসলাম সম্মত এবং কোরান-হাদিস দ্বারা প্রমানিতে। যদি একজন মুসলিমও তা পালন না করে তার জন্য ইসলাম পরিবর্তিত হয়ে যায় না।
দাঁত ভাঙা কার্টেসিঃ বামাতি এবং মডারেট।

বি.দ্র. কটূক্তির বদলে দাঁত ভাঙা জবাব গুলো আমার নয়। বিভিন্ন সময়ে মুমিনগণ যে জবাব দিয়েছেন তা ছড়িয়ে দিচ্ছি শুধু। আপনারাও সবাই শেয়ার করে নাস্তিকদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জবাব দিন, ঈমান পোক্ত করুন...
Title: Re: নাস্তিকদের কটূক্তির দাঁত ভাঙা জবাব
Post by: Jupiter Joyprakash on April 06, 2015, 10:07:52 AM
দাঁতভাঙা জবাব সিরিজের লেখক ওয়াশিকুর বাবু ইসলামী সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত হয়েছেন। ইসলামের সম্পর্কে লেখালেখির কারণেই তাঁকে হত্যা করা হয়েছে বলে গ্রেপ্তার হওয়া দুই আক্রমণকারী স্বীকার করেছে।
ওয়াশিকুর বাবুর পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি আমাদের সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। তাঁর নির্ভীক লেখনী সমাজের অনুপ্রেরণা হিসাবে কাজে লাগলেই আমরা সান্ত্বনা লাভ করব।